http://shamsfood.com/

‘জঙ্গিবাদ বন্ধে যা করা প্রয়োজন, তাই করব’… শেখ হাসিনা

fileDESK:: বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধ-হরতালে পেট্রোল বোমায় মানুষ হত্যাসহ নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডকে জঙ্গিবাদের সঙ্গে তুলনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিএনপি-জামায়াতকে জঙ্গি সংগঠন উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, ‘জঙ্গিবাদ বন্ধে যা করা প্রয়োজন, তাই করব।’

পেট্রোল বোমার আগুনে দগ্ধ ব্যক্তিদের দেখতে বুধবার সকাল ৯টা ৩৫ মিনিটে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বার্ন ইউনিট পরিদর্শন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নাশকতার হুকুমদাতা, অর্থ জোগানদাতা, বোমা হামলাকারী সবাইকে বিচারের আওতায় আনা হবে।’

খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষ পুড়িয়ে মারা বন্ধ করুন। হরতাল-অবরোধের নামে যা করা হচ্ছে তা জঙ্গিবাদ। মানুষ হত্যার লাইসেন্স তাকে কে দিয়েছে? সে জামায়াত-শিবিরকে নিয়ে সাধারণ মানুষকে পুড়িয়ে মারবে, বোমা মারবে, সরকার তা মেনে নেবে না।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত জঙ্গি দল। আপনারা কেন তাদের নিউজ প্রচার করেন। তাদের নিউজ প্রচার না করলে কি টেলিভিশন চলবে না। আমি বেসরকারি টেলিভিশনের অনুমোদন দিয়েছি। তাদের নিউজ যারা বেশি করে দিচ্ছেন, তারা তাদের আরো উৎসাহিত করছেন। আপনারা জল্লাদদের নিউজ কাভারেজ দেওয়া বন্ধ করুন, দেখবেন তারা সহিংসতা কমিয়ে দিয়েছে।’

সংলাপ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কার সঙ্গে আলোচনা। খুনির সঙ্গে কিসের কথা। যার মধ্যে কোনো দয়া-মায়া নেই, তাদের সঙ্গে আলোচনা হতে পারে না।’

জামায়াতে ইসলামী প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘তাদের এটাই চরিত্র। স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় থেকেই তারা একই ধরনের সন্ত্রাস ও সহিংসতা চালিয়ে আসছে। এখনো চালাচ্ছে। দেশবাসী এখন বিএনপি-জামায়াতকে প্রতিরোধ করছে।’

বিভিন্ন সময়ে পেট্রোল বোমা হামলায় দগ্ধ ৬৩ জনকে ১০ লাখ টাকা করে মোট ৬ কোটি ৩০ লাখ টাকার পারিবারিক সঞ্চয়পত্র দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত ৬ জানুয়ারি থেকে দেশব্যাপী লাগাতার অবরোধ ও দফায় দফায় হরতাল কর্মসূচিতে যানবাহনে দুর্বৃত্তদের ছোড়া পেট্রোল বোমায় এ পর্যন্ত অর্ধশতাধিক মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে ৬৩ জন বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন।

 

http://shamsfood.com/